ভ্যাজলিন এর বিশেষ কিছু ব্যবহার

প্রিয় দর্শক! ভ্যাজলিন দিয়ে আমরা কী করি? নিশ্চয় বলবেন,  ভ্যাজলিন আমরা শীতের দিনে গায়ে ব্যাবহার করে থাকি, যাতে করে আমাদের ত্বক প্রচন্ড শীতে ফেটে না যায়, তাই না?

বন্ধুরা! আজকে আমি ভ্যাজলিনের বেশ কিছু ভীন্ন রকম ব্যবহার দেখাবো, যা দেখলে আপনার ভালো লাগবে, তবে ভ্যাজলিন সম্পর্কে আরেকটা তথ্য আপনাদের দেই, ভ্যাজলিন বিশ্বে ১৪০ বছরেরও বেশী সময় ধরে ব্যবহার হয়ে আসছে।

বন্ধুরা চলুন আমরা ভ্যাজলিনের বেশ কিছু লাইফ হ্যাকস্ দেখে নেইঃ-

এক. চোখের নিচের কালো দাগ দূর করতে ভ্যাজলিনের ব্যাবহারঃ চোখের নিচের কালো দাগ দূর করার জন্য প্রথমে এক চামচ ভ্যাজলিন নিন, তারপর এর মাঝে অল্প পরিমানে লেবুর রস দিয়ে ভালো করে মিসিয়ে নিন। এরপর এই মিশ্রনটি আপনার চোখের নিচের কালো অংশে লাগিয়ে দিন,  একঘন্টা এভাবে রেখে দিন, এরপর ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এভাবে এক সপ্তাহ ব্যাবহার করলে আপনার চোখের নিচের কালো দাগ একেবারে চলে যাবে।

দুই. হেয়ার ড্যামেজ প্রতিরোধে ভ্যাজলিনঃ হেয়ার ড্যামেজ এর ট্রিটমেন্ট হিসেবে ভ্যাজলিন সফলভাবে ব্যবহৃত হচ্ছে, এটি আপনার চুলকে সিল্কি, স্মুথ এবং শাইনিং করবে। প্রথমে এক চামচ পরিমান ভ্যাজলিন একটি বাটিতে নিন, এরপর একটা ডিমের সাদা অংশ এর সাথে নিন। এরপর ভালো করে মিক্স করে নিন।

এরপর এই মিশ্রনটি আপনার সম্পূর্ণ চুলে লাগিয়ে নিন, এখন ৩০ মিনিট চুলে লাগিয়ে রাখুন, ৩০ মিনিট পর হাল্কা কুসুম গরম পানি দিয়ে শ্যাম্পু করে ধুয়ে ফেলুন। দেখবেন আপনার চুল আগের চেয়ে অনেক বেশী সিল্কি, স্মুথ এবং শাইনিং হবে।

তিন. পায়ের গোড়ালি ফাটা রোধে ভ্যাজলিনঃ লোশন বা ক্রিমের পরিবর্তে অনেকেই ভ্যাজলিন ব্যবহার করে থাকেন, তবে অনেকেই জাননে না যে, পায়ের গোড়ালী ফাটা রোধেও ভ্যাজলিন ব্যবহার  করা যেতে পারে। রাতে ঘুমানোর সময় পা ধুয়ে ভালো করে ভ্যাজলিন লাগালে পা-ফাটা থেকে খুব সহজেই মুক্তি পাওয়া যায়।

চার. চোখের ভুরু এবং চোখের পাপড়ির ঘনত্ব বাড়াতে ভ্যাজলিনঃ প্রথমে একটি পাত্রে এক চামচ ভ্যাজলিন নিন, এবং সাথে একটি ভিটামিন ই-ক্যাপসুলের ভিতরে থাকা ওয়েল বের করে মিক্স করে নিন।  এখন এটিকে ভালো করে মিশিয়ে নিন, আপনি চাইলে এটিকে এক সপ্তাহ পর্জন্ত সংরক্ষণ করতে পারেন।  রাতে ঘুমানোর আগে একটি কটনবারের সাহায্যে চোখের পাপড়ী এবং ভুরুতে লাগাতে পারেন। এভাবে দুই সপ্তাহ লাগালে এর থেকে ভালো ফলাফল পাবেন।  আপনার যদি চুল পড়া সমস্যা থেকে থাকে, তাহলে আপনি মাথায় এই মিক্সটি ব্যবহার করতে পারেন।

পাঁচ. পারফিউম এর ঘ্রান দীর্ঘস্থায়ী করতে ভ্যাজলিনঃ যেখানে পারফিউম ব্যবহার করা হয়, যেমন গলা, ঘার কিংবা অন্য কোন যায়গায় সামান্য ভ্যাজলিন লাগিয়ে তারপর পারফিউম লাগালে, পারফিউমের ঘ্রান খুব সহজে যায়না। আমি ব্যাক্তিগতভাবে প্রায় সময়িই এভাবে ব্যবহার করে থাকি।

ছয়. মোমবাতির বিকল্প হিসেবে ভ্যাজলিনঃ বন্ধুরা! জেনে অবাক হবেন যে, মোমবাতির কিল্প হিসেবে ভ্যাজলিন ব্যবহার করা যায়, সেজন্য প্রথম একটি ম্যাচের কাঠি উল্টো করে ভ্যাজলিনের বক্সে বসিয়ে দিন, এরপর আরেকটি ম্যাচের কাঠি দিয়ে আগুন ধরিয়ে দিন, দেখবেন ভ্যাজলিন মোমবাতির মতো কাজ করবে।

সাত. জুতার উজ্বলতায় ভ্যাজলিনের ব্যবহারঃ ইমারজেন্সি কোথায় জেতে হবে, কিন্তু হাতের কাছে জুতার পালিশ নেই, কোন সমস্যা নেই, এক টুকরো কাপড়ের উপর সামান্য ভ্যাজলিন নিয়ে জুতা মুছে ফেলুন। দেখবেন জুতা পালিশ করার মতোই উজ্বল হয়ে গেছে।

Check Also

news photo

টাকার কাছে নিজের ব’উ কে বিক্রি করে দিলেন স্বামী

টাকার লোভে নিজের বিয়ে করা বউকে বিক্রি করে দেওয়ার ঘ’টনা ঘটেছে ভারতের নদিয়ার শান্তিপুরের নতুনহাটে। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You cannot copy content of this page