বাংলাদেশের আলোচিত-সমালোচিত কিছু বিয়ে

তারকাদের বিয়ে এমনিতেই সবার নজর কাড়ে৷ সংবাদমাধ্যম ব্যস্ত হয়ে পড়ে৷ তবে পাত্র বা পাত্রীর বয়স একটু বেশি হলে ড্রয়িং রুমে, পার্কে, সংবাদমাধ্যম বা সোশ্যাল মিডিয়ায় যেন ঝড় ওঠে৷

আলোচিত এবং ‘ট্যাবু’ ভেঙে দেয়া অনেক বিয়েই হয়েছে বাংলাদেশে৷ তালিকা করলে অনেক দীর্ঘ হবে সেই তালিকা৷ তাই এখানে শুধু নিকট অতীত ও সাম্প্রতিক সময়ের কয়েকটি বিয়ের কথা৷

হুমায়ূন আহমেদ-শাওন এর বিয়ে

হুমায়ূন আহমেদ এবং মেহের আফরোজ শাওন
হুমায়ূন আহমেদ এবং মেহের আফরোজ শাওন

জননন্দিত লেখক, পরিচালক হুমায়ূন আহমদে অভিনেত্রী মেহের আফরোজ শাওনকে বিয়ে করেন ২০০৫ সালে৷ শাওনকে দ্বিতীয় স্ত্রী হিসেবে বরণ করার আগে প্রথম স্ত্রী গুলতেকিন আহমেদের সঙ্গে বিচ্ছেদ হয়৷ তারপরও দীর্ঘদিন আলোচনায় ছিল হুমায়ূন-শাওনের বিয়ে৷ প্রধান আলোচ্য ছিল বয়স৷ বিয়ের সময় হুমায়ূন আহমেদের বয়স ছিল ৫৭ আর শাওনের ২৪ বছর৷ কণ্যাসম অভিনেত্রীকে বিয়ে করার বিষয়টি নিয়ে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা হলেও, পরে এই দম্পতির কাজই বেশি আলোচিত হয়েছে৷

বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক অঙ্গনে হুমায়ূন আহমেদ-শাওন নিঃসন্দেহে অন্যতম ‘সফল’ জুটি৷ ২০১২ সালে ক্যানসারে মারা যান হুমায়ূন আহমেদ৷ তাঁর জীবন আরো দীর্ঘ হলে এ দম্পতির স্মরণীয় কাজের তালিকা নিঃসন্দেহে আরো দীর্ঘ হতো৷

রেলমন্ত্রীর বিয়ে

রেলমন্ত্রী মুজিবল হক্ব এবং হনুফা আক্তারের বিয়ের ফটো
রেলমন্ত্রী মুজিবল হক্ব এবং হনুফা আক্তারের বিয়ের ফটো

বাংলাদেশের রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক বিয়ে না করে জীবনের অনেকটা সময় পার করে দেয়ায় অনেকে তাঁকে ‘চিরকুমার’ বলতে শুরু করেছিলেন৷ কিন্তু দু’বছর আগে মন্ত্রী মহোদয় জানিয়ে দিলেন, বয়স ৬৭ হলেও আর তিনি ‘কুমার’ থাকবেন না৷ ২০১৪ সালের ৩১ অক্টোবর খুব ঘটা করেই বিয়ে হয় তাঁর৷

পাত্রী হনুফা আক্তার রিক্তা ২০০০ সালে এসএসসি পাশ করেছেন৷ পাত্র-পাত্রীর বয়সের পার্থক্য নিয়ে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে রসিকতা করেছেন অনেকে৷ তবে রেলমন্ত্রী সেসবে কোনো মনোযোগ না দিয়ে সামাজিক এবং ধর্মীয় সব আনুষ্ঠানিকতা মেনেই বিয়ে করেছেন৷ সংবাদমাধ্যমে ব্যাপক প্রচার পেয়েছে সেই বিয়ে৷

৬৭ বছর বয়সে বিয়ের সিদ্ধান্ত নেয়ার কারণ জানাতে গিয়ে বিয়ের আগে মুজিবুল হক বলেছিলেন, ‘‘দেখলাম মানুষের জীবনের শেষ বয়সে একজন সঙ্গী দরকার, যাতে পরবর্তী জীবনে নিঃসঙ্গ না থাকতে হয়৷” একাকীত্ব ঘুচেছে৷ বিয়ের এক বছর সাত মাস পর বাবাও হয়েছেন তিনি৷ জানা গেছে, রেলমন্ত্রীর এই বিয়ে নিয়ে নাকি চলচ্চিত্র নির্মাণের কাজও ইতিমধ্যে শুরু হয়ে গেছে৷

চিত্রনায়িকা মাহির সঙ্গে অপুর বিয়ে

মাহিয়া মাহি এবং অপুর বিয়ের ফটো
মাহিয়া মাহি এবং অপুর বিয়ের ফটো

সত্যজিৎ রায়ের ‘অপুর সংসার’-এর পর আর কোনো অপুর সংসার নিয়ে সংবাদমাধ্যমে এত আলোচনা হয়েছে কিনা সন্দেহ৷ পাত্রের নাম অপু হলেও বিয়েটি অবশ্য বেশি আলোচিত হয়েছে পাত্রী মাহির কারণে৷ চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি৷ এ বছরই বিয়ে করে চমকে দিয়েছেন তিনি৷ উঠতি এবং অনেকের মতে সম্ভাবনাময় এই অভিনেত্রী রূপালি জগতের কাউকে বিয়ে করেননি, পাত্র হিসেবে তিনি বেছে নিয়েছেন সিলেটের ব্যাবসায়ী পারভেজ মাহমুদ অপুকে৷

মাহি চলচ্চিত্র অঙ্গনে পা রাখেন ২০১২ সালে৷ অভিনেত্রী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার আগেই তাঁর এই বিয়েকে চলচ্চিত্র অঙ্গনের অনেকে ‘ঝুঁকিপূর্ণ সিদ্ধান্ত’ হিসেবে দেখছেন৷ অতীতে বিয়ের পর অনেক অভিনেত্রীর জনপ্রিয়তা কমেছে বলে বিয়ে মাহির ক্যারিয়ারেরও ক্ষতি করবে বলে তাঁদের আশঙ্কা৷

তবে ক্যারিয়ারের শুরুতে, কিংবা প্রতিষ্ঠিত হওয়ার আগে বিয়ে বাংলাদেশে নতুন কিছু নয়৷ চলচ্চিত্র ইতিহাসের অন্যতম সফল অভিনেত্রী শাবানা বিয়ে করেছিলেন মাত্র ২১ বছর বয়সে৷ বিয়ের পরে প্রায় ২৪ বছর দাপটের সঙ্গেই অভিনয় করেছেন তিনি৷

মাহিয়া মাহির জীবনী, প্রথমিক জীবন, এবং অজানা সব তথ্য জানতে পড়ুন: Mahiya Mahi Age Height & Biography

সুবর্না মুস্তাফা-সৌদ এর বিয়ে

সুবর্না মুস্তাফা এবং তার স্বামী সৌদ
সুবর্না মুস্তাফা এবং তার স্বামী সৌদ

সাংস্কৃতিক অঙ্গনের আরেক আলোচিত জুটি সুবর্ণা মুস্তাফা-বদরুল আনাম সৌদ৷ প্রখ্যাত অভিনেতা গোলাম মুস্তাফার মেয়ে সুবর্ণার এটি দ্বিতীয় বিয়ে৷ প্রথম বিয়ে হয়েছিল কিংবদন্তিতুল্য অভিনেতা হুমায়ূন ফরিদীর সঙ্গে৷ ২০০৮ সালে ছাড়াছাড়ি হয়ে যায় তাঁদের৷ সে বছরই সুবর্ণা বিয়ে করেন পরিচালক বদরুল আনাম সৌদকে৷ সুবর্ণার চেয়ে সৌদ বয়সে বেশ ছোট বলেই বিয়েটি সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে নানাভাবে আলোচিত হয়৷ নাট্যাঙ্গনের সফল এই জুটিও তাঁদের কাজের মাধ্যমে দেশের সংস্কৃতিকে সমৃদ্ধ করে চলেছেন৷

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You cannot copy content of this page